মিলাদ শরীফ পড়ার সঠিক নিয়ম

মিলাদ শরীফ কিভাবে পড়ে
মিলাদ পড়ার নিয়ম

মিলাদ শরীফ কিভাবে পড়ে

একটু কথাঃ মিলাদ মানে হলো যেখানে নবীজীর জন্ম নিয়ে আলোচনা করা হয়। আমারা অনেকেই আসলে বলতে ভুল করি। কেউ যখন কারো বাবা,মা,আত্বীয় জন্যে দোয়া করার ইচ্ছে করে মনে ইচ্ছে থাকে আমি নবীর ওয়ারিশ যারা আলেম আছেন তাদেরকে সাথে নিয়েই দোয়া করবো,কিছু মানুষের জন্যে খাবারের আয়োজন করবো। এই অনুষ্ঠানটা হলো মুলত দোয়ার অনুষ্ঠান।হয় বলতে ভুল হয় যে মিলাদ কিন্তু আসলে হবে দোয়ার অনুষ্ঠান। আবার যেসন দোয়ার অনুষ্ঠানে তাওল্লা শরীফ পড়া হয় সেটা মেলাদের আওয়ায় পড়ে যায়,কারন তাওল্লা শরীফে নবিজীর জন্ম নিয়ে কথা আছে। দোয়ার আগে নবির উপর একটু দুরূদ পাঠ করি এই বিশ্বাসে যে,আল্লাহর আমাদের হাতকে কবুল না করতে পারেন কিন্তু আল্লাহর বন্ধুর উচিলায় তো কবুল করতে পারেন। তাই আসুন দন্ধ নয় মিলে মিশে ইসলামের পথে চলি। এই মিলাদ নিয়ে কোন ঝগড়া নয়, ইচ্ছে হলে করবেন যদি মন না চায় করবেন না। কিন্তু কোন বিবাদ নয়। তো আসুন শিখে নেই মিলাদ কিভাবে পড়তে হয়।

প্রথমে

اعوذ بالله من الشيطان الرجيم

بسم الله الرحمن الرحيم

يَا أَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءَتْكُم مَّوْعِظَةٌ مِّن رَّبِّكُمْ وَشِفَاءٌ لِّمَا فِي الصُّدُورِ وَهُدًى وَرَحْمَةٌ لِّلْمُؤْمِنِينَ قُلْ بِفَضْلِ اللَّهِ وَبِرَحْمَتِهِ فَبِذَٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوا هُوَ خَيْرٌ مِّمَّا يَجْمَعُونَ

বাংলা উচ্চারণঃ ইয়া আইয়্যুহান্না-ছুকাদ জা-আতকুম মাও’ইজাতুম মির রাব্বিকুম ওয়া শিফাউল লিমাফিস সুদূরি ওয়া হুদাওঁ ওয়া রাহমাতুল্লিল মু’মিনিন। কূল বি ফাদলিল্লা-হি ওয়া বি রাহমাতিহী ফাবিযা-লিকা ফালইয়াফরাহূ হুওয়া খাইরূম মিম্মা ইয়াজমা’ঊন।


এরপর পড়বে

لَقَدْ جَاءَكُمْ رَسُولٌ مِّنْ أَنفُسِكُمْ عَزِيزٌ عَلَيْهِ مَا عَنِتُّمْ حَرِيصٌ عَلَيْكُم بِالْمُؤْمِنِينَ رَءُوفٌ رَّحِيمٌ

فَإِن تَوَلَّوْا فَقُلْ حَسْبِيَ اللَّهُ لَا إِلَٰهَ إِلَّا هُوَ ۖ عَلَيْهِ تَوَكَّلْتُ ۖ وَهُوَ رَبُّ الْعَرْشِ الْعَظِيمِ

বাংলা উচ্চারণঃ আউযু বিল্লাহিমিনাশ শায়তানির রযীম। বিসমিল্লাহির রাহমানির রহীমঃ লাকাদ জা’আকুম রসূলুম মিন আনফুসিকুম আযীযুন আলাইহি মা আনিত্তুম হারীছুন আলাইকুম বিল মু’মিনিনা রউফুর রহীম। ফাইন তাওয়াল্লাও ফাক্বুল হাসবি আল্লাহু লা’ ইলাহা ইল্লাহু। আলাইহি তাওয়াককালতু , ওহুয়া রব্বুল আরশীল আযীম। (সূরা তাওবা শরিফ, আয়াত শরীফ ১২৮, ১২৯)।


তারপর পড়বেঃ

مَّا كَانَ مُحَمَّدٌ أَبَا أَحَدٍ مِّن رِّجَالِكُمْ وَلَٰكِن رَّسُولَ اللَّهِ وَخَاتَمَ النَّبِيِّينَ ۗ وَكَانَ اللَّهُ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمًا


বাংলা উচ্চারণঃ মা কানা মুহম্মাদুন আবা আহাদীম মির রীজালিকুম ওলাকির রসূল্লাল্লাহি ওয়া খতামান নাব্যিয়িন। ওয়া কা’নাল্লাহু বিকুল্লি শাইয়্যিন আলীমা। (সূরা আহযাব শরিফ আয়াত শরিফ ৪০)।


তারপর পড়বেঃ

إِنَّ اللَّهَ وَمَلَائِكَتَهُ يُصَلُّونَ عَلَى النَّبِيِّ ۚ يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا صَلُّوا عَلَيْهِ وَسَلِّمُوا تَسْلِيمًا

বাংলা উচ্চারণঃ ইন্নাল্লাহা ওয়া মালা’ইকাতাহু ইয়ুছল্লুনা আলান নাবিয়্যি। ইয়া’ আইয়্যুহাল্লাযীনা আমানু ছল্লু আলাইহি ওয়া সাল্লীমু তাসলীমা। ( সূরা আহযাব শরিফঃ আয়াত শরিফ ৫৬)


(এরপর মুহব্বতের সাথে নিম্নোক্ত দরূদ শরীফ পাঠ করবে এবং দরূদ শরীফের সাথে মিলিয়ে ক্বাছীদা শরীফ পাঠ করুন)


اللهم صل علي سيدنا مولنا رسول الله

و علي ال سيدنا مولنا حبيب


বাংলা উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা ছল্লীআলা’ সাইয়্যিদিনা মাওলানা রাসুলাল্লাহ। ওয়াআ’লা আলি সাইয়্যিদিনা মাওলানা হাবিবিল্লাহ।

মিলাদ শরীফের কাসিদা জানতে ক্লিক করুক 


অতঃপর যিনি মীলাদ শরীফ পাঠ করবেন তিনি নিম্নোক্ত “তাওয়াল্লুদ শরীফ” পাঠ করবেন-


نحمد و نصلي و نسلم علي رسوله الكريم و اله واصحابه اجمعين

بسم الله الرحمن الرحيم

ولما تم من حمله صلي الله عليه وسلم ستة اشهر الاقوال المروية، توفي بلمدينة الشريفة  ابوه عبد الله، وكان قد اجتاز باخواله بني عدي من الطاءفة النجارية، ومكث فيهم شهرا سقيما يعانون سقمه و شكواه ، ولما تم من حمله صلي الله عليه و سلم علي الراجح تسعة اشهر قمرية ، وان للزمان ان ينجلي عنه صداه ، حضرت امه في نسوة من الحظيرة القدسية ، واخذها المخاض ، فولدته النبية صلي الله عليه و سلم نورا يتلا لاسناه


বাংলা উচ্চারনঃ 

বিসমিল্লাহির রহমানির রহীমঃ ওয়া লাম্মা তাম্মা মিন হামলিহী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামা সিত্তাতু আশহূরিন আলা মাশহুরিল আক্বওয়ালিল মারবিয়্যাহ। তুউফফিয়া বিল মাদীনাতিল মুনাওয়ারাতিশ শরীফাতি হাদ্বারাত যাবিহুল্লাহিল মুকাররম আবুহু ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। ওয়া কানা কাদিজতাযা বি আখওয়ালিহী বানী আদিয়্যিম মিনাত ত্বয়িফাতিন নাজ্জারিয়্যাহ। ওয়া মাকাছা ফীহিম শাহরাং সাক্বীমাইঁ ইউয়ানূনা সুক্বমাহূ ওয়া শাকওয়াহ।

ওয়া লাম্মা তাম্মা মিন হামলিহী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আলার রাজিহি তিসয়াতু আশহূরিং ক্বামারিয়্যাহ। ওয়া আনা লিয যামানি আইঁ ইয়াংজালিয়া আনহু ছদাহ। হাদ্বারাত সাইয়্যিদাতা নিসায়িল আলামীনা উম্মাহূ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামা লাইলাতা মাওলিদিহী হাদ্বারাত উম্মুল বাশারি আলাইহাস সালাম ওয়া হাদ্বারাত উম্মু যাবীহিল্লাহিল উলা ওয়াছ ছানিয়াতু আলাইহাস সালাম ওয়া হাদ্বারাত রব্বাতু কালীমিল্লাহি আলাইহাস সালাম ওয়া হাদ্বরাত উম্মু রূহিল্লাহি আলাইহাস সালাম ফী নিসওয়াতিম মিনাল হাযীরাতিল কুদসিয়্যাহ। ওয়া আখাযাহাল মাখাদ্ব ফাওয়ালাদাতহু সাইয়্যিদাল মুরসালীন ইমামাল মুরসালীন খাতামান নাবিয়্যিন ওয়ান নূরাল মুজাসসাম হাবীবাল্লহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নূরাইঁ ইয়াতালা’লা উসিনাহ।


(তারপর সকলেই ক্বিয়াম শরীফ করবেন বা দাঁড়িয়ে মুহব্বতের সাথে নিম্নোক্ত ভাবে সালাম পেশ করবেন এবং প্রতিবার সালমের সাথে একটি করে ক্বাছীদা শরীফ পড়বেন)


صلي الله علي رسول الله – صلي الله عليه و سلم – صلي الله علي حبيب الله – صلي الله عليه و سلم

বাংলা উচ্চারণঃ

ছল্লাল্লাহু আলা রাসুলাল্লা, ছল্লাল্লা হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ছল্লাল্লা হু আলা হাবিবাল্লাহ  ছল্লাল্লা হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ।

মিলাদ শরীফের কাসিদা জানতে ক্লিক করুক 

এরপর পড়বেঃ

ইয়া রব্বি ছল্লি ওয়া সাল্লিম দায়িমান আবাদান আবাদা॥ খায়রি খালক্বি কুল্লিহিম, ভেজ আয় রব মেরে দরূদ আওর সালাম বর গুযীদা নবী পর আপনি মুদাম।

বালাগাল উলা বিকামালিহি + কাশাফাদদুজা বিজামালিহি। হাসুনাত জামিইউ খিছলীহি + ছল্লু আলাইহি ওয়া আলিহি।


সাল্লিমু ইয়া ক্বাওমুবাল ছল্লু আ’লা ছদরীল আমীন। মুছত্বফা মা জা’য়িল্লা রহমাতাল্লিল আ’লামীন।

আত্বিরিল্লাহুম্মা ক্বাবরাহুল কারীম + বিআরফী শাযয্যিয়্যাম ছলাতিউ ওয়া তাসলীম। আল্লাহুমা ছল্লি ওয়া সাল্লীম ওয়া বারিক আলাইহি।

এরপর ৩বার সূরা ইখলাস ও সাথে ১ বার সূরা ফাতিহা পড়বে। তারপর সকলেই হাত তোলে দোয়া করবে।এভাবে অনুষ্ঠান শেষ করবে।