ইসলামে আধুনিকতা

 


ইসলামে আধুনিকতা

     ইসলামের প্রতিটি বিধানই সর্বাধুনিক ও বাস্তবসম্মত । ভারসাম্যহীন ও মানবকল্যাণ বিরোধী কোনো বিধান ইসলাম সমর্থন করে না । ইসলাম একটি আধুনিক ও বাস্তবসম্মত সমাজ গঠনে মানবতাকে তত্ত্ব ও বাস্তবতা শেখায় । 

আধুনিকতার সংজ্ঞাঃ- 

     আধুনিকতার ইংরেজি প্রতিশব্দ Modernism- এর অর্থ- উৎকর্ষ । অর্থাৎ ঐতিহ্যকে উৎকর্ষ সাধন করে , মনলোভা করে গর্বিত রীতি ও নিয়মের প্রচলন ও সর্বজনগ্রাহ্য করে তোলার নাম আধুনিকতা বা Modernism . 

ইসলাম ও আধুনিকতাঃ-

   ইসলাম চির আধুনিক একটি সমাজব্যবস্থা নিয়ে আগমন করেছে । আধুনিকতার মূল উদ্দেশ্য হলো মানুষের কল্যাণ সাধন করা । আর মহান আল্লাহ প্রদত্ত বিধান মানবতার সর্বোচ্চ কল্যাণ সাধন করে । ইসলামের আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক বিধিব্যবস্থা সবকিছুই আধুনিকতার ধারায় প্রণীত । কিন্তু ইসলামবিদ্বেষী জ্ঞানপাপী একটি শ্রেণি ইসলামকে আধুনিকতা ও প্রগতির অন্তরায় বলে মনে করে । 

ইসলামের রাজনৈতিক মতবাদঃ-

    প্রচলিত সকল রাজনৈতিক ধারার বিপরীতে ইসলামি গণতন্ত্র একটি আধুনিকতম রাজনৈতিক ধারার প্রচলন করে । আধুনিক গণতন্ত্রে একজন অসৎ ও দুশ্চরিত্রবান ব্যক্তি জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হতে সক্ষম । কিন্তু ইসলামি গণতন্ত্রে তা অসম্ভব । ইসলাম কেবল মানবকল্যাণে নিবেদিত সুশিক্ষিত লোককে প্রতিনিধি নির্বাচনে যোগ্য বলে ঘোষণা করে । 

আধুনিক অর্থব্যবস্থা ও ইসলামঃ-

   বর্তমান বিশ্বে প্রচলিত পুঁজিবাদী ও সমাজতান্ত্রিক অর্থব্যবস্থা মূলত শোষণ ও নিপীড়নের প্রধান হাতিয়ার । কিন্তু ইসলামি অর্থব্যবস্থা কল্যাণমুখী ধারার প্রবর্তক । আধুনিক অর্থনীতিবিদগণ যখন সুদকে শোষণের হাতিয়ার ঘোষণা করে , ইসলাম প্রায় দেড় সহস্রাধিক বছর পূর্বেই সুদকে নিষিদ্ধ করেছে । 

মানবাধিকার ও ইসলামঃ-

      ইসলাম সর্বপ্রথম মানবাধিকারের ঘোষণা দিয়েছে । রসূল ( স ) এর মদিনা সনদ ও বিদায় হজের ঐতিহাসিক ভাষণ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সনদের উৎস হিসেবে স্বীকৃত ।

নৈতিকতা ও ইসলামঃ-

    আধুনিকতার নামে বিশ্বব্যাপী নৈতিকতার যে বিপর্যয় চলছে ইসলাম তা সমর্থন না করে নিষিদ্ধ করেছে । ইসলাম উগ্র আধুনিক এসব অশ্লীলতা , বেহায়াপনা , মাদকতা এবং পতিতাবৃত্তি নির্মূলের কঠোর ঘোষণা দিয়েছে । বাস্তবতার প্রয়োজনে আধুনিক সেক্যুলার বুদ্ধিজীবিগণও আজ ইসলামের পবিত্র নৈতিকতাকে গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছে ।

 ইসলাম ও বর্ণবাদঃ-

     বর্ণ - বৈষম্যবাদের কোনো স্থান ইসলাম ধর্মে নেই । ইসলামের ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় যে , ক্রীতদাসও ইসলামি সাম্রাজ্যের সেনাপতি হতে পারে , শাসক হতে পারে । কৃষ্ণাঙ্গ হযরত বেলাল ( রা ) ইসলামের প্রথম মুয়াযযিন । ইসলাম বর্ণ , গোত্র , ধনী - গরিব নির্বিশেষে সবাইকে সমান চোখে দেখে । 

ইসলামে নারীর অবস্থানঃ-

    নারীদের পর্দাপ্রথাকে প্রগতির অন্তরায় বলে কটাক্ষ করা হয় । অথচ , ইসলামে নারীর যত অধিকার ও স্বাধীনতা রয়েছে তা অন্য কোনো ধর্মে নেই । নারীকে তার স্বর্গীয় মর্যাদায় একমাত্র ইসলামই প্রতিষ্ঠিত করতে চায় । অথচ , উগ্র আধুনিকতা ও নারী স্বাধীনতার নামে নারীদের দেহ প্রদর্শন করার জন্য উৎসাহিত করা হয় । ইসলাম এহেন বেহায়াপনাকে মূলোৎপাটন করে নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পর্দাপ্রথা চালু করেছে । 

ইসলাম ও আন্তর্জাতিকতাঃ-

  বিশ্বব্যাপী ইসলাম ভ্রাতৃসংঘের আঞ্চলিকতা , সাম্প্রদায়িকতা ও জাতীয়তাবাদের মূলে কুঠারাঘাত করে । 

উপসংহারঃ-

     আধুনিক বিশ্ব প্রগতি ও সমৃদ্ধির পথে চলতে পারে কেবল ইসলামে বিধি বিধান অনুসরণের মাধ্যমেই । কারণ , ইসলাম হলো একটি আধুনিক ও মানবতাবাদী ধর্ম । জর্জ বার্নার্ড’শ যথাথই বলেছেন I have prophesied about the faith of Muhammad that it would be acceptable to the Europe of tomorrow as it as beginning to be accepted to the Eurone of todav